স্বাস্থ্য বিষয়ক টিপস-প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য টিপস

সবাইকে আমাদের স্বাস্থ্য বিষয়ক ব্লগে স্বাগতম। শুরু হতে যাচ্ছে আমাদের নিয়মিত স্বাস্থ্য বিষয়ক টিপস সংবলিত ধারাবাহিক পোস্ট । স্বাস্থ্য টিপস ক্যাটাগরিতে আমরা প্রথমে রেখেছি প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য টিপস। আমাদের প্রতিনিয়ত পথচলা যদি বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে হয় তাহলে স্বাস্থ্যসম্মত জীবন সুচনা করবো। কারণ স্বাস্থ্য বিজ্ঞান আমাদের স্বাস্থ্যসম্মত জীবনের পরিপূরক। আসলে মানুষের জীবনে ভালো অভ্যাস অনুশীলন,উচ্চ জীবন দান করে। এই অনুশীলনের মধ্যে শেখার অনুশীলন মুখ্য।মানে হলো,আপনাকে জীবনের প্রতিটা মুহূর্ত শিখতে হবে। তাহলে আমরা আজ আপনাদের শেখাবো কিভাবে স্বাস্থ্য বিষয়ক টিপস সংবলিত প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য টিপস জেনে আমাদের জীবনে প্রয়োগ করতে হয়।

স্বাস্থ্য বিষয়ক টিপস-প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য টিপস পর্ব ০১

আজ ০৫ টি প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য টিপস জানবো যা আপনাকে অবশ্যই পালন করতে হবে-

০১। স্রষ্টার প্রার্থনাঃ

স্রষ্টার কাছে নিজেকে সঁপে দিন। যখন আপনাকে দুঃখ দুর্দশা কষাঘাত করবে তখন আপনার বিশ্বাস আপনাকে বাঁচিয়ে রাখবেন,কারন আপনি বিশ্বাস করেন এইগুলো তার পরীক্ষা,যেখানে আমাকে পাশ করা লাগবে। প্রতিদিন স্রষ্টার প্রার্থনা করার অভ্যাস গড়ে তুলুন। প্রতিদিনের ইবাদত আপনাকে মনে শান্তি বিরাজ করবে,হালকা হবে আপনার মন। আর প্রার্থনা করতে যেয়ে আপনাকে পবিত্র হতে হয়,আর এখানেই দেহ পরিষ্কারের  সাথে সাথে আপনার মন পরিষ্কার হতে থাকে। তো বন্ধুরা আজ থেকে স্রষ্টাকে ভুলে নয় বরং সেই মহান স্রষ্টাকে সাথে নিয়ে প্রতিদিন সকাল শুরু করুন ।

০২। বুদ্ধিমত্তা বাড়ানঃ  না বুদ্ধিমত্তা বাড়ানোর জন্য আপনাকে কোন মেডিসিন খেতে বলবো না।এই বুদ্ধিমত্তা কিভাবে বাড়ানো যায়, তাও আবার প্রাকৃতিক ভাবে। এটা নিয়ে কয়েক পর্ব লেখা যায়।আজকে শুধু সংক্ষেপে বলবো।খেয়াল করে পড়ুন,মনঃসংযোগ হারালে ধরতে পারবেন না।

  • আপনাকে যথেষ্ট সক্রিয় থাকতে হবে। অলসতা বা পিছুটান যেন আপনার উপর ভর না করে।
  • মাঝে মাঝে আবেগি অবচেতন হয়ে যান,না ঘুমের বড়ি খেয়ে নয়। ধ্যান করুন,সাহিত্যে  চর্চা করুন।
  • সব কিছুতে চিন্তাশীল হোন। আবার যেন দুশ্চিন্তা কইরেন না। সুচিন্তা করবেন। যেমন কিভাবে এই ভাইয়ার ধারাবাহিক পোস্ট নিজের জীবনে প্রয়োগ করা যায়।
  • আপনার যদি খুব শখের কাজ থাকে তাহলে দিনের এক অংশ সেখানে পার করুন।
  • পর্যাপ্ত পরিমান ঘুম অত্যাবশ্যক।
  • হাতে কলমে ক্রিয়েটিভ কাজ করবেন।
  • অবশ্যই ভালো খাবার আপনার বুদ্ধিমত্তাকে বাড়াতে সাহায্য করে। তবে শুধু গোশ-মাংস নয়। দরকার পরিমিত সুষম খাবার। শাক সবজি,আশ জাতীয় খাবার, মাছের তেল, ভিটামিন বি ও ই,কাঁচা ফলমূল ইত্যাদি।

০৩। পরিবারঃ মাইকেল জে ফক্স-এর একটা উক্তি আছে পরিবার কোন গুরুত্ব পূর্ণ বিষয় না,আসলে ইহা সব কিছুই। ভাল করে বুঝে নিন উক্তিটি। আপনাকে প্রথমে পরিবারে শক্তিশালী বন্ধনে আবদ্ধ হতে হবে। পরিবারের নিয়ম কানুন,আবেগ,ভালবাসা সব কিছু ঠিকঠাক রাখতে হবে,সেখানে সময় দিতে হবে।

 

০৪। নিজেকে প্রস্তুত করুন:  নিজেকে শেখা  থেকে বিরত রাখবেন না। নিজেকে উন্নয়নশীল, নতুন দক্ষতা এবং জিনিস শিখতে আপনাকে পরিপূর্ণ বোধ করতে হবে। আপনাকে খুঁজতে হবে আপনি কি চান? সেটার মাঝেই নিজের দক্ষতার পরিচয় দিতে হবে। আপনিও পারেন,তারাও পারে। সবখানে খাপ রেখে চলতে হবে। আপনার লক্ষ্যের চালিকা শক্তি যেন গতিময় হয়,সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

০৫। নিজেকে ভালবাসতে শিখুনঃ দেখুন এত সব স্বাস্থ্য বিষয়ক টিপস কিসের জন্য ? শুধুমাত্র আপনি হ্যাঁ শুধুমাত্র আপনারই জন্য। তাহলে নিজে বিশ্বাস করতে হবে আমি পারবো কারন আমার আমিতেই। যদি আপনি নিজেকে ভালবাসতে পারেন তাহলে আপনি কখনোই নিরাশ হবেন না।

আজ এ পর্যন্ত আগামী পর্বে আপনাদের সবার উপস্থিতি কামনাই বিদায় নিচ্ছি।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *